• USD এর রিপোর্ট কিছুটা ভালো আসায় USD/JPY বেশ খানিকটা উঠেছে, গোল্ড কিছুটা ড্রপ করেছে।  
  • ২০০৮ সালের পর এই প্রথমবার ফেড রেট কাট করতে যাচ্ছে, এবং আগামী মাসের প্রথম শুক্রবার NFP রিলিজ হবে। অর্থাৎ এক সপ্তাহে এত বড় বড় দুইটা রিপোর্ট রিলিজ হবে।  
  • জুলাই মাসে ডলারের রিপোর্টগুলি ছিলো মিক্সদ বা টাড় চেয়ে একোতূ ভালো। খূব ভালো বলা যাবে না।
  • ট্রেডিং সেন্টিমেন্ট ইন্ডিকেটর বলতেছে USD/JPY সাময়িক উঠলেও, লং টার্মে পরে যেতে পারে আবার। গোল্ড ১৩৮০ এর নিচে স্ট্যাবল হতে না পারলে আবার উঠে যাওয়ার চান্স প্রবল।

মিক্সড রিপোর্ট বলতে শুধু মাত্র ম্যাক্রো ইকোনোমিক রিপোর্টগুলিকে মিন করি নাই আমি। অভার ওল কন্ডিশনের উপর বেইজ করে বলেছি ডলারের রিপোর্ট মিক্সড। ম্যাক্রো ইকোনোমিক রিপোর্টগুলি নিয়ে কোন সন্দেহ নাই। মেজরিটি রিপোর্টগুলিই পজিটিই ডলারের।

কিন্তু পলিটিক্যাল ইস্যুগুলি এখনো সুরাহা হয় নাই। চিনের সাথে এখনো ট্র্যাম্প প্রশাসনের কথা-বার্তা চলতেছে ট্যারিফ ইস্যু নিয়ে। এটা নিয়ে এখনো কোন পক্ষই সমাধানে আসতে পারে নাই। যে কারনে ডলারের রিপোর্ট মিক্সড। সেইম একই কারনে এখনো যথেষ্ট সুযোগ আছে সেফ হেভেন হিসেবে JPY এবং GOLD শক্তিশালী হওয়ার।

ম্যক্রো ইকোনোমিক ডাটা নিয়ে এখনো আমেরিকার তেমন সমস্যা নাই। তবে ট্রাম্পের দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ি ইকোনোমিক গ্রোথ ৩.০০% থেকে ইকোনোমিক গ্রো এখন ২.১% এ চলে এসেছে। এয়াট ট্রাম্পকে ইমেজ সংকটে ফেলবে। ইমেজ সংকটে পরলে স্টক মার্কেটের উপর আস্থা হারাবে বিনিয়োগকারীরা।

ইকোনোমিক গ্রোথ যেহুতু ড্রপ করেছে আগের চেয়ে যদিও প্রত্যাশার চেয়ে ভালো তারমানে আগামী সপ্তাহে স্টক মার্কেটের লিস্টেদ কোম্পানিগুলির আর্নিং ও ড্রপ করবে। আর স্টক ড্রপ করলেও JPY  এবং GOLD  শক্তিশালী হয়ে যায়  ডলারের বিপরীতে। এদিকে আবার করবে রেট কাট, যদিও রেট কাট প্রাইজড ইন। বাট তারপরও কিছুটা স্পাইক দিতে পারে। আর গত মাসের  এনএফপি ডাটা ছিলো হিউজ পজিটিভ, এমন রিপোর্ট ধরে রাখা কঠিন। আর ইকোনোমিক গ্রোথ যেভাবে কমেছে এটলিস্ট এত জব ধরে রাখা সহজ হবে না।

এদিক দিয়ে পারস্য উপসাগরে ইরানের সাথে ইংল্যান্ড – আমেরিকার সুদ্ধ লাগে লাগে অবস্থা। এর মধ্যে নর্থ কোরিয়া আবার মিশাইল টেস্ট করেছে। সবদিক মিলিয়ে JPY এবং  GOLD  সেফ হেভেন হিসেবে অনেক ভালো  অবস্থানে আছে। আমার মতে।

আগস্টের ১ তারিখে FOMC, প্রেশ কনফারেন্স এবং রেট ডিসিশন আছে। একই দিন রাত ৮.০০ মিনিটে ISM ম্যানুফ্যাকচারিং রিপোর্ট ও রিলিজ হবে। এখন পর্যন্ত ফেড এক্সপেকটেশন করে রেকেহছে ২৫ বিপি রেট কাটের। যদি ২৫ বিপিই করে তাহলে খুব একটা ডলার দুর্বল হবে না। সামান্য একয়াট স্পাইক দিয়েই মার্কেট অপেক্ষা করবে ফেড স্টেটমেন্ট কিন দিলো এবং ফেডের প্রেশ কনফারেন্সের জন্য। মুল মুভ হবে তখন FOMC এর পলিসির উপর।

সচরাচর সেন্ট্রাল ব্যাংক যখন রেট কাট করে তখন ডোভিশ স্টেটমেন্ট খুব কম দেয়। নইলে বড় ধরনের মুভ করে ফেলে অল্পম সময়ের মাঝে। আমার ধারনা ফেড ও তাই করবে। রেট কাট করে হকিশ স্টেমেন্ট দিবে যাতে ডলারের উপর নেগেটিভ প্রভাব কম পরে। আর ২৫ বিপি রেট কাট তো আগে থেকেই প্রাইজ ইন।

আর সবকিছুর উর্ধে গিয়ে ৫০ বিপি রেট কাট করলে তো কোন কথাই নেই। ডলার ইন্সট্যান্ট ডাই। তখন মনিটারি পলিসি কোন কাজ করবে না।

আর ফেড যদি মিক্সড মেসেজ দেয় তাহলে মার্কেট সেদিনের মুভ হবে ISM ম্যানুফ্যাকচারিং রিপোর্ট এর উপর নির্ভর করে।

ISM ম্যানুফ্যাকচারিং রিপোর্ট আগে ছিলো ৫১.৭ সেখান থেকে আগামী সপ্তাহে ফোরকাস্ট করেছে ৫২.০০। অর্থাৎ আগে থেকে কিছুটা পজিটিভ।

আর আগামী মাসের টোটাল মার্কেট মুভ নির্ধারন করবে আগামি সপ্তাহের FOMC স্টেটমেন্ট , রেট ডিশিসন, এনএফপি, আর্নিং এর উপর।

NFP আগের মাসে ছিলো ২২৪K সেখান থেকে কমিয়ে প্রত্যাশা করেছে ১৬০K. অর্থাৎ জব মার্কেট এর গতি কমেছে। আর্নিং ও ২.০০% বরাবর প্রত্যশা করেছে। এবং আন এমপ্লয়েমেন্ট ও আগের মতই ৩.৭% এর স্থির প্রত্যাশা করেছে।

অর্থাৎ টোটাল লেবার মার্কেট নিয়ে কোন ধরনের প্রত্যাশা নেই আমেরিকার। এবং রিপোর্টগুলি আসলেই ফোরকাস্টের মতই খারাপ আসে তাহলে আগামী মাসে ডলার দুর্বল হওয়া ছাড়া কোন গতি নাই JPY এবং গোল্ডের বিপরীতে।  কারন পলিটিক্যালি সেফ হেভেন শক্তিশালী অবস্থানে আছে, এর মাঝে লেবার মার্কেত রিপোর্ট খারাপ আসা ডলারের জন্য গোদের উপর বিষফোঁড়া ছাড়া আর কিছুই হবে না।

তবে লেবার মার্কেট রিপর্টগুলি ভালো আসলে, একই সাথে ২৫ বিপির উপর রেট কাট না করলে JPY  এবং গোল্ড উভই কিছুটা কারেকশনে যাতে এতেও কোন সন্দেহ নাই।

GOLD টেকনিক্যাল এনালাইসিস

গোল্ড টেকনিক্যাল চার্ট

বর্তমান রেট থেকে রেসিস্টেন্স আছে ১৪৩০ এরিয়াতে। ১.৪৩০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে নেক্সট টার্গেট ১৪৩৯/৪০ এরিয়া। টেকনিক্যালি ১৪৪০ এরিয়া ব্রেক আউট কঠিন। যদিও এর আগে ফেইক ব্রেক আউট করে ১৪৪০ ব্রেক আউট করলেও আবার মার্কেট ১৪৪০ এর নিচে স্ট্যাবল হয়েছে। তবে এবার ১৪৪৪০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে মার্কেটে পরবর্তি টার্গেট থাকবে ১৪৫০/৫২ এরিয়া পর্যন্ত।

এবং একই সাথে যদি ৫০ বিপি রেট কাট হয় + লেবার মার্কেট রিপোর্ট যদি ঝঘন্য খারাপ আসে অর্থাৎ আর্নিং + এনএফপি দুইটাই একসাথে খারাপ আসে তাহলে নতুন হাই ক্রিয়েট করা কঠিন না গোল্ডের জন্য। নেক্সট টার্গেট হতে পারে আগামী সপ্তাহে ১৪৮০/১৪৮৮ এরিয়া পর্যন্ত।

অন্যদিকে, বর্তমান রেট থেকে সাপোর্ট আছে ১৪০৭ এরিয়াতে। ১৪০৭ এরিয়া ব্রেক আউট হলে নেক্সট টার্গেট  ১৪০০ এরিয়াতে। ১৪০০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে নেক্সট টার্গেট ১৩৮৫/৮২ এরিয়া পর্যন্ত।

ফেড যদি কোন ধরনের রেট কাটই না করে অথবা মাত্র ২৫ বিপি করে। NFP যদি ২০০K এর উপরে আসে, এবং আর্নিং যদি ০.৩+ আসে থাকে মার্কেট আগামী মাসে ১৩৮০ এর নিচে স্ট্যাবল হয়ে যেতে পারে। এবং নেক্সট টার্গেট হতে পারে ১৩৫০/৪২ এরিয়া পর্যন্ত।

USD/JPY টেকনিক্যাল এনালাইসিস

USD/JPY টেকনিক্যাল চার্ট

বর্তমান রেট থেকে রেসিস্টেন্স আছে ১০৯.০০ এরিয়াতে। ১০৯.০০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে নেক্সট টার্গেট ১০৯.৬০/৮০ এরিয়াতে। ১০৯.৮০ ব্রেক আউট হলে নেক্সট টার্গেট ১১০.০০ এরিয়া পর্যন্ত। এবং ফাইনালি যদি ১১০.০০ এরিয়া ব্রেক আঊট হয়ে তাহলে টার্গেট থাকবে ১১০.০০ এরিয়া পর্যন্ত।

অন্যদিকে, বররত্মান থেকে থেকে মার্কেট কারেকশনে যাওয়ার চান্স রয়েছে। নেক্সট টার্গেট ১০৮.০০ থেকে ১০৭.৮০ এরিয়া পর্যন্ত। ১০৭.৮০ এরিয়ার নিচে মার্কেট স্ট্যাবল হলে নেক্সট টার্গেট ১০৭.৩০/২০ এরিয়া পর্যন্ত। ১০৭.২০ এর নিচে স্ট্যাবল হলে ফাইনাল টার্গেট ১০৬.৭০ এরিয়া পর্যন্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here