আমার যেটা মনে হয় ইউরো একটা বটমিক সার্কেল শেষ করে ফেলেছ।
অনেকগুলি ফ্যাক্টই ইউরোর জন্য পজিটিভ হিসেবে কাজ করবে।

যে কারনে ইউরো শক্তিশালী হতে পারে।

ইউরোজোনের ইন্ডাস্ট্রিয়াল একটিভিটি বেড়েছে ( জার্মানির অটো প্রোডাকশন বেড়েছে)

চন্দিতিওন্স ফাইনানশিয়াল কন্ডিশন বৃদ্ধি পেয়েছে।

ওয়েল প্রাইজ কম থাকার কারনে ফ্যাক্টরি কস্ট কমে যাবে।

TLTRO এর মাধ্যমে ফিসক্যাল স্টিমুলেট দিয়েছে ECB, যেটা ইউরোর জন্য পজিটিভ।

বর্তমান ECB প্রেসিডেন্ট মারিও দ্রাঘি কিছু দিনের মাঝেই মেয়াদ শেষ করে ফেলবে, পরবর্তী যে প্রেসিডেন্ট হবে সে অনেকটাই হকিশ মেম্বার হিসেবেই আমরা জানি। নতুন প্রেসিডেন্ট এর হকিশ অবস্থান প্রাইজ ইন হতে পারে।

ইউরো লংগার টার্ম কট অপশনে দেখা যাচ্ছে ১.১০০০ এর চেয়ে ১.১৫০০ এরিয়ার দিকেই বেশী পরিমান মানি স্ট্যাক করা, অর্থাৎ ইনভেস্টররা ইউরো শর্ট পজিশনের চেয়ে লং পজিশনের দিকে যাচ্ছে বেশী।

যে কারনে ইউরো দুর্বল হতে পারে।

বিশ্বব্যাপী ইকোনমিক গ্রোথ কমে যাওয়া।

ইতালির পলিটিক্যাল ক্রাইসিস

টেকনিক্যাল লেভে

বর্তমান রেট থেকে মেজর রেসিস্টেন্স আছে ১.১৩৭০ এরিয়াতে। ১.১৩৭০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে নেক্সট টার্গেট ১.১৪৪৫/১.১৪৭০ এরিয়া। নেক্সট টার্গেট ১.১৫২০/১.১৫৫০ এরিয়া পর্যন্ত।

অন্যদিকে, বর্তমান রেট থেকে সাপোর্ট আছে ১.১২৪০ এরিয়াতে। ১.১২৪০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে মার্কেট আবার ১.১১২০/১.১১০০ এরিয়া টেস্ট করতে পারে। ১.১১০০ এরিয়া ব্রেক আউট হলে ফাইনাল টার্গেট ১.১০০০ এরিয়া পর্যন্ত।


LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here