১। একই পেয়ারে রি-এন্ট্রি নিবেন নাঃ ধরেন EUR/USD বাই মোডে আছেন, কিন্তু মার্কেট পরতেছে। আপনি সেখানে হাই একুইরেট ফান্ডামেন্টাল রিজন না থাকলে ২য় বাই বাই এন্ট্রি দিয়েন। যেহুতু একটা বাই উপরে আছেই, হোল্ড করেন, ভালো ফান্ডামেন্টাল বুঝলে নিউজে রিকোভারি বা কাউন্টার এন্ট্রি দেওয়া যেতে পারে, নইলে না।

ইকনোমিক ক্যালেন্ডারে রিপোর্ট ভালো আসা মানেই ভালো, আর খারাপ আসা মানেই খারাপ এমন থিওরি কখনোই ঠিক না। রিপোর্ট ভালো মন্দেরারো গভীরতা আছে। এটা না বুঝলে কাউন্টার ট্রেড আরো ক্ষতি করবে।

২। প্রতি ট্রেডে সর্বচ্য ২-৩% এর বেশী রিস্ক নয়ঃ একটা ট্রেডে কখনোই ২/৩% এর বেশী রিস্ক নিবেন না। আপনি যতই ভালোই ট্রেড বুঝেন, আর যত বড় পন্ডিতই হোন, প্রতি ট্রেডে ৩% এর বেশী রিস্ক নেওয়া উচিত না। ২% হলে সবচেয়ে ভালো হয়। ফরেক্স পিপ্সের খেলা, লটের না।

৩। ব্রেক ইভেন ব্যবহার করতে শিখুনঃ মেজর পেয়ারে ৩০ পিপ্স এবং ক্রশ পেয়ারে ৫০ পিপ্স প্রফিট আসলেই উচিত ৩/১ ভাগ লটের প্রফিট টেক করে ফেলা। একই সাথে ব্রেক ইভেনে দিয়ে দেওয়া, যাতে মার্কেটে বড় ধরনের কারেকশন হলেও, যাতে আর লস না হয়। মিনিমাম সমান সমানে ক্লোজ হয়ে যায়। যেহুতু প্রথমেই কিছু প্রফিট টেক করে ফেলা হয়েছে।

৪। সমান লট ইউজ করুন সবসময়ঃ সব সময় ফিক্সড এবং সমান লট ইউজ করুন। কারন সব পেয়ারে পিপ্স ভ্যালু সমান না। EUR/USD তে ১০০ পিপ্সে ০.১০ লটে ১০০ ডলার আসলেও GBP/NZD ১০০ পিপ্সে আসবে মাত্র ৭৫ ডলার।

অর্থাৎ পেয়ার ভেদে পিপ্সে ভ্যালুতে পার্থ্যক আছে। এখন যদি লট সমান না রাখেন তাহলে দেখা যাবে পিপ্স ইনকাম হইছে, কিন্তু লাভে লসে লসে থাকবেন। এই জন্য লট অলয়েজ ফিক্সড এবং সমান রাখবেন।

৫। নিয়মিত প্রফিট উইথড্র করুনঃ যদি ডিপোজিটের ১০% আর্ন করতে পারেন, তাহলে সাথে সাথে উইথড্র দেন। এটা সেন্টিমেন্ট ঠিক রাখতে হেল্প করবে। বেশীরভাগ সময় দেখা যায় আমরা প্রফিটে থাকা অবস্থাতেও ট্রেড ধরে রাখি। মনে করি একাউন্ট আরেকটু বড় হোক।

কিন্তু ওই অবস্থায় আপনার সেন্টিমেন্টে কাজ করবে প্রফিট যেহুতু আছেই, আরেকটু রিস্ক নেই। আরেকটু রিস্ক নেই। এভাবে শুধু রিস্ক বাড়বে। অল্প অল্প করে বড় রিস্কে পরে যাবেন। একাউন্ট বড় করতে চাইলে উইথড্র করে রেখেন দেন আরেক যায়গায়।

দরকার হলে জমিয়ে জমিয়ে একসাথে বড় করে ফান্ড ভরবেন। কিন্তু ট্রেডিং একাউন্টে ১০% প্রফিট আসলেই উইথড্র করে ফেলবেন।  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here